ই-পেপার ফটোগ্যালারি আর্কাইভ  শুক্রবার ● ৪ ডিসেম্বর ২০২০ ● ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৭
ই-পেপার  শুক্রবার ● ৪ ডিসেম্বর ২০২০
শিরোনাম: জাতিসংঘের সঙ্গে পরামর্শ করেই রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর       প্রকাশ্যে টিকা নেবেন যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক তিন প্রেসিডেন্ট       আসাদুজ্জামান নূর করোনাভাইরাসে আক্রান্ত       বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ একে অপরের সমার্থক: সেনাপ্রধান       একাত্তরের নৃশংসতা ভোলার নয়: প্রধানমন্ত্রী       ভাস্কর্যবিরোধী বক্তব্য রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত:-তথ্যমন্ত্রী       করোনায় আরও ৩৫ জনের মৃত্যু      
গাইবান্ধার বিল-জলাশয়ে চলছে দলবদ্ধ মাছ শিকার
উত্তম সরকার, গাইবান্ধা
Published : Monday, 26 October, 2020 at 7:45 PM

বিল-জলাশয়ে পানিস্বল্পতায় গাইবান্ধার গ্রামাঞ্চলে এখন চলছে মাছ ধরার মৌসুম। সেই সঙ্গে বিল-জলাশয়গুলোতেও শুরু হয়েছে ঐতিহ্যবাহী আর আনন্দময় ‘বৈদ’ নামের দলবদ্ধ মাছ শিকার। 

সোমবার সদর উপজেলার খোলাহাটি ইউনিয়নের ঝিনিয়ার বিল ও কুপতলা ইউনিয়নের নলিগলির বিলে মাছ শিকারের মধ্য দিয়েই এবার শুরু হয়েছে বৈদ নামে দলবদ্ধ মাছ শিকারের পর্ব। 

উল্লেখ্য, প্রাচীনকাল থেকেই এতদাঞ্চলে বৈদ নামের এই মাছ ধরা চলে আসছে। বৈদ নামে প্রকৃত অর্থ কি জানা না গেলেও এর বিশেষ শিংগার ফুৎকার আর দলবদ্ধ মাছ ধরার আঞ্চলিক ভাষার সঙ্গে এই নামের সংশি-ষ্টতা রয়েছে। সাধারণত কার্তিক মাসের প্রথমদিক থেকে শুরু করে মাঘ মাস অবধি যখন বড় বড় বিল, নদী ও খালে পানি কম থাকে তখনি এই দলবদ্ধ বৈদ নামের মাছ ধরার প্রকৃত মৌসুম। 

জেলার ছয়টি উপজেলাতেই রয়েছে পৃথক পৃথক শৌখিন এই মাছ শিকারির দল। বৈদ দলের আলোচনার ভিত্তিতে মাছ শিকারের নির্দিষ্ট জলাশয়, তারিখ, সময়, যাত্রার স্থান নির্ধারণ করে গ্রামের হাট-বাজারে ঢোল শহরৎ করে তা জানিয়ে দেওয়া হয়। এই বৈদের দলের একজন দলনেতা থাকেন। যার কাছে থাকে মহিষের শিং দিয়ে তৈরি বড় একটি বাঁশি। যাকে বলা হয় বৈদের শিংগা। যা দিয়ে বিউগলের মতো উচ্চ স্বরে শব্দ বের হয় এবং অনেক দূর থেকে তা শোনা যায়। নির্ধারিত স্থানে যথাসময়ে শিংগায় ফুঁ দেওয়া হয় বার বার। আর শিংগার আহ্বানে নিজ নিজ পছন্দমতো মাছ ধরার নানা সরঞ্জাম নিয়ে সমবেত হতে থাকেন মৎস্য শিকারিরা। 

সাধারণত পূর্বনির্ধারিত বিল-জলাশয়ে দলবদ্ধ হয়ে মাছ শিকার চলে দিনভর। এতে কোনো বাধ্যবাধকতা নেই, যে কেউ এতে শামিল হতে পারে। সে কারণে একটি বৈদের দল যখন কোনো বিল বা নদীতে একযোগে সারিবদ্ধভাবে মাছ শিকারে নামে, তখন একটি বৈদের দলে মাছ শিকারির সংখ্যা কমপক্ষে ৫০০ থেকে দাঁড়ায় এক হাজার বা তারও বেশি হয়ে যায়। 

আজকালের খবর/এএইস


সর্বশেষ সংবাদ
আরো খবর ⇒
সর্বাধিক পঠিত
সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি : গোলাম মোস্তফা || সম্পাদক : ফারুক আহমেদ তালুকদার
সম্পাদকীয়, বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : হাউস নং ৩৯ (৫ম তলা), রোড নং ১৭/এ, ব্লক: ই, বনানী, ঢাকা-১২১৩।
ফোন: +৮৮-০২-৪৮৮১১৮৩১-৪, বিজ্ঞাপন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৯, সার্কুলেশন : ০১৭০৯৯৯৭৪৯৮
ই-মেইল : বার্তা- [email protected] বিজ্ঞাপন- [email protected]
দৈনিক আজকালের খবর লিমিটেডের পক্ষে গোলাম মোস্তফা কর্তৃক বাড়ি নং-৫৯, রোড নং-২৭, ব্লক-কে, বনানী, ঢাকা-১২১৩ থেকে প্রকাশিত ও সোনালী প্রিন্টিং প্রেস, ১৬৭ ইনার সার্কুলার রোড (২/১/এ আরামবাগ), ইডেন কমপ্লেক্স, মতিঝিল, ঢাকা-১০০০ থেকে মুদ্রিত।
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত দৈনিক আজকালের খবর
Web : www.ajkalerkhobor.com, www.eajkalerkhobor.com